1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৯:৩৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঝালকাঠিতে গ্রামীন ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার’র দূর্নীতির মামলায় ১০বছরের কারাদন্ড। তালতলী ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়। কাহালুতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে, বিনামূল্য সার বীজ বিতারন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সাহিত্য সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে লেখক হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট পেল সাংবাদিক বাচ্চু। কেশবপুরের বাঁশবাড়িয়া বাজার পরিচালনা কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন। নেত্রকোনার সুলতানকে দেখতে মানুষের ভিড়। জন্মনিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায়,সুবিদপুর উদ্যোক্তার সাথে স্থানীয় জনতার হাতাহাতি। কাহালুতে প্রাণী সম্পদ অফিসে খামারীদের মধ্যে গরু,ছাগল বিতরণ। প্রবাসী বাংলাদেশীদের সাথে নিয়ে ব্রাসিলিয়ায় পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন উদযাপন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অসহায় শিশু তানিশার দায়িত্ব নিলেন পুলিশ সদস্য জীবন মাহমুদ।

আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে চুকনগরে পালিত হল গণহত্যা দিবস।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২১ মে, ২০২২
  • ৪০ বার পঠিত

পরেশ দেবনাথ, কেশবপুর,যশোর।

আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে নানা কর্মসূচীর মধ্য
দিয়ে শুক্রবার পালিত হলো চুকনগরে গণহত্যা দিবসটি। প্রথম পর্বে সকাল ৯.৩০ মিঃ চুকনগর বধ্যভূমিতে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের সাথে সাথে কার্যক্রম শুরু হয়। শহীদদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা পালন,চুকনগর বধ্যভূমিতে বিভিন্ন সংগঠনের পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। এর পর ভদ্রা নদীতে ফুলের লাখো পাপড়ি ভাসানো ও নদীর পাড়ে চুকনগর গণহত্যা একাত্তর স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি ও চুকনগর কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এ. বি.এম শফিকুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুন্যালের চীপ ইনভেস্টিগেটর,সাবেক আই জি,পি সানাউল হক।

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,যশোর দৈনিক কল্যাণ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা, খুলনা মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল সিংহ রায়, যশোর উদিচির সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মজনু,ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ আসিফুর রহমান, আমরা একাত্তর যশোরের কাজী বর্ণ উত্তম, যশোর উদীচীর সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান বিপ্লব, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম মহিউদ্দীন,তালা শহীদ মুক্তযোদ্ধা মহবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এনামুল হক,ডাকসুর সাবেক জিএস ও আমরা একাত্তরের অন্যতম সংগঠক, ইঞ্জিনিয়ার হেলাল ফয়েজি, আমরা একাত্তরের ঢাকা ও যশোর উদিচির সংগঠক আজিজুল হক মনি ও চুকনগর গণহত্যা ৭১ স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি এ বি এম শফিকুল ইসলাম। প্রত্যক্ষদর্শীরা মনে করেন,চুকনগরের মত গণহত্যা পৃথিবীর আর কোথাও নেই। অল্প সময়ের মধ্যে চুকনগরে ১০ থেকে ১২ হাজার আবাল বৃদ্ধ, বনিতাকে হত্যা করা এটা একটি নজির বিহীন। স্বাধীনতার পক্ষের সরকার ক্ষমতায় থাকার পরও ৫১ বছরে চুকনগরের গণহত্যার সরকারীভাবে কোন স্বীকৃতি মেলেনি। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে একাত্তর প্রেমি মানুষ এসেছিলেন গণদাবির সাথে একাত্মতা ঘোষনা করতে। ভদ্রা নদীতে ফুলের পাপড়িতে ভরে গিয়েছিল। একটি ড্রোন উড়ে উড়ে যেন গণমানুষের দাবী পর্যবেক্ষণ করছিল।

বিকাল ৫ টায় দ্বিতীয় পর্বে চুকনগর বধ্যভূমিতে চুকনগর গণহত্যা একাত্তর স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি ও চুকনগর কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এ. বি.এম শফিকুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, সাবেক প্রতিমন্ত্রী, খুলনা-৫ আসনের এম.পি নারায়ন চন্দ্র চন্দ। অনুষ্ঠানে চুকনগর গণহত্যা ও জেনোসাইডের ৫১বছর-এ চুকনগর গণহত্যা একাত্তর স্মৃতিরক্ষা পরিষদ প্রতিমন্ত্রী’র কাছে “চুকনগর” কে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দান করা। “চুকনগর বদ্ধভূমি” কে দর্শনীয় পর্যটন স্থান হিসেবে গড়ে তোলা।স্বাধীনতা ও চুকনগর গণহত্যার মর্মবোধ ও চেতনার ধারক-বাহক “চুকনগর কলেজ” কে জাতীয়করন করা।

ঐতিহাসিক গণহত্যায় শহীদের রক্তে ভেজা চুকনগর জনপদ কে “পৌরসভায়” উন্নীত করা। ৪ জেলার সংযোগ স্থল চুকনগর বাস স্ট্যান্ড জিরোপয়েন্টে গণহত্যার চেতনায় শহীদ স্বরণে অধুনিক স্থাপত্য শিল্পে নান্দনিক ভাষ্কর্য নির্মান করাসহ বিভিন্ন দাবী তুলে ধরেন।

প্রধান অতিথি বলেন,পৃথিবীর কোন দেশে চার ঘণ্টার মধ্যে এত অধিক সংখ্যক হত্যাযোগ্য বিশ্বে নেই, যা চুকনগরে ঘটেছিল। এটা গণহত্যার স্বীকৃতি পাওয়া উচিৎ। তিনি গণহত্যা দিবসকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নেওয়ার জন্য মহান সংসদে প্রস্তাব রাখবেন ও অবকাঠামো উন্নয়নের সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন। তিনি আরও বলেন, শহীদ পরিবারের একটি স্বীকৃতি রাষ্ট্রীয়ভাবে থাকা উচিৎ। জুন মাসের গণনায় তাঁদের লিপিবদ্ধ করা যায় কিনা সেটিও আলোচনা করবেন।

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন,খুলনা মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি,বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল সিংহ রায়, যশোর দৈনিক কল্যাণ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দৌলা,ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরীফ আসিফুর রহমান, ডাকসুর সাবেক জিএস ও আমরা একাত্তরের অন্যতম সংগঠক, ইঞ্জিনিয়ার হেলাল ফয়েজি, যশোর উদিচির সভাপতি মাহাবুবুর রহমান মজনু,ডুমুরিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেখ কনি মিয়া প্রমূখ। বক্তারা চুকনগরের গণহত্যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতির জোর দাবী জানান।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, চুকনগর বালিকা বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আশুতোষ নন্দী,
ভান্ডারপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোপাল চন্দ্র দে, চুকনগর বণিক সমিতির সভাপতি প্রহ্লাদ কুমার ব্রহ্ম, উপজেলা যুবলীগের সদস্য জাকির হোসেন মিল্টন, অধ্যাপক ফারুক হোসেন, অধ্যাপক জুলফিকার আলী জুলু, সরদার ওহিদুর রহমান, চুকনগর ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম বাবু প্রমূখ। অনুষ্ঠানে জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, যুবলীগ,ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ,সকল উপজেলার হিন্দু, বৌদ্ধ,খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন, চুকনগর কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও চুকনগর গণহত্যা ৭১ স্মৃতিরক্ষা পরিষদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ মণিরুল ইসলাম (ব্রাউন)।
পরে সকল উপজেলার হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের ৩৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কর্মসূচী হিসাবে মোমবাতি প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে একাত্তরের শহীদদের স্মরণ করা হয়। ঐক্য পরিষদের সহযোগীতায় যশোর উদিচির পরিবেশনায় সাউন্ড এন্ড লাইট শো ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
ছবিঃ
২১/০৫/২২

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা