মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন

কারিমাকে বিয়ে করাই কাল হলো শরীফুলের।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৩৬ বার পঠিত
আপডেট সময় : রবিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১, ৩:৪১ অপরাহ্ণ

কনিকা আক্তার, গাজিপুর শ্রীপুর প্রতিনিধি।
গাজীপুরের শ্রীপুরে নববধুকে বাড়িতে উঠিয়ে আনার দিন খুন হওয়া অটোচালক শরিফুল হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন ( পিবিআই)।পরিবারের আপত্তির মুখেও শালিকা কারিমাকে বিয়ে করার অপরাধে দুই দুলাভাই লাখ টাকায় চুক্তি করে খুন করান শালিকার জামাই শরিফুল কে।

এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে। হত্যাকাণ্ডে দুইজন দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে।শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআই গাজীপুর ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোকছেদুর রহমান।

গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বনখড়িয়া গ্রামের মৃত নায়েব আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম (২০) ভাড়ায় অটোরিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। গত ৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে অটোরিক্সা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয় শরিফুল। ওই দিন বিকেলে বনখড়িয়া বাজার থেকে রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট বিপসট গেইট সড়কে চালকবিহীন অটোরিক্সাটি দেখতে পান স্থানীয়রা। পরে অটোরিক্সার পেছনে থাকা মোবাইল নাম্বারে ফোন করে বিষয়টি মালিক মোশারফ হোসেনকে জানান রোমান হোসেন নামের এক ব্যক্তি।বিষয়টি অটোরিক্সার মালিক মোশারফ হোসেন অটোর চালকের বড় ভাই মোঃ সেকান্দারকে জানান। ওইদিন রাতে অটোচালক শরিফুল বাড়িতে না ফেরায় তার স্বজনরা পরদিন ১০ডিসেম্বর শুক্রবার সকালে অটো উদ্ধারের জায়গা থেকে সামান্য দুরে গজারি বনের ভেতর থেকে শরিফুল ইসলামের গলাকাটা মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। ওই দিনই শ্রীপুর থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন নিহত অটোচালকের বড় ভাই সেকান্দার।

মামলা দায়েরের পর শ্রীপুর থানা পুলিশ, পিবিআইসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক টিম হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে তদন্ত শুরু করেন। ঘটনার সপ্তাহের মধ্যেই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে গাজীপুর পিবিআই।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোকছুদের রহমান জানান, ভিকটিম শরিফুল ঘটনার ১০/১২দিন আগে জেলার জয়দেবপুর থানার এলাকার ভাওয়াল মির্জাপুর গ্রামের মঞ্জুরুল ইসলামের মেয়ে কারিমা (১৭) কে পরিবারের অমতে গোপনে বিয়ে করেন। গত ১০ডিসেম্বর শুক্রবার (হত্যাকাণ্ডের পরের দিন) কারিমাকে পারিবারিক ভাবে অনুষ্ঠান করে হত্যাকাণ্ডের শিকার শরিফুলের বাড়িতে নেয়ার কথাছিল। কিন্তু কারিমার বড় ভাই খোরশেদ আলমের শ্যালক রাজিব শেখ কারিমাকে পছন্দ করতো এবং পারিবারিক ভাবে সেখানে বিয়ে হওয়ার কথাছিল। এছাড়াও কারিমার বড় দুই বোনের স্বামী রাকিব হোসেন ও জুয়েল রানাসহ পরিবারের সদস্যরা কারিমার বিয়েতে রাজী না থাকায় তারা নিহত শরিফুলের ঘনিষ্ট বন্ধু আছমত ওরফে তারেকের সাথে যোগাযোগ করে তাকে হত্যার জন্য এক লাখ টাকায় চুক্তি করে। চুক্তি মোতাবেক নিহত শরিফুলকে সিগারেট খাওয়ানোর কথা বলে আছমত বনখড়িয়া বাজার থেকে রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট বিপসট গেইট সড়কের মাঝামাঝি গজারী বনের ভেতর নির্জন জায়গায় নিয়ে যায়। সেখানে গিয়ে আছমতসহ আরও তিনজন সিগারেট ও গাঁজা সেবন করার এক পর্যায়ে শরিফুলকে মাটিতে ফেলে গলায় ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে।এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার হিজুলিয়া গ্রামের আঃ রশিদের ছেলে শফিকুল ইসলাম (২৫), শ্রীপুর উপজেলার বনখড়িয়া গ্রামের মোঃ আমজাদ হোসেনের ছেলে অফ্রিদি (১৯), জেলার জয়দেবপুর থানা এলাকার বাউপাড়া গ্রামের মোঃ নিয়ত আলীর ছেলে মোঃ রাকিব হোসেন (২২), জামালপুর জেলার ইসলামপুর থানা এলাকার দর্জিপাড়া গ্রামের মোঃ হাসানের ছেলে, ভাওয়ালমির্জাপুর এলাকার ইব্রাহিম মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া মোঃ রাজিব শেখ (২২), ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর থানার মিছিটেঙ্গী গ্রামের মোঃ শফিকুল ইসলামের ছেলে, গাজীপুর মহানগরের সদর থানার শিকদার বাড়ি ভিমবাজার এলাকার জুয়েল রানা (২৭) ও গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বনখড়িয়া উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত শাজাহ উদ্দিনের ছেলে মোঃ হানিফ (২৭)।

আসামী শফিকুল ইসলাম, মোঃ হানিফ ও আফ্রিদিকে শুক্রবার (১৭ই ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার বন খড়িয়া গ্রাম থেকে ও রাকিব হোসেন, রাজিব শেখ, মোঃ জুয়েল রানাকে বৃহস্পতিবার (১৬ই ডিসেম্বর) রাতে গাজীপুরের ভাওয়াল মির্জাপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এরমধ্যে গ্রেফতারকৃত আসামী আফ্রিদি ও শফিকুলকে আদালতে উপস্থাপন করা হলে তারা নিজেদের জড়িয়ে ও অন্যান্য আসামীদের জড়িত থাকার কথা বলে স্বীকারোক্তমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। অপর আসামী রাকিব হোসেন, রাজিব শেখ, জুয়েল রানা ও হানিফকে গ্রেফতার করে আদালতে উপস্থাপন করা হলে আদালত তাদের তিনদিনের রিমাণ্ড মঞ্জুর করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD