1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ১০:৪৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সয়াবিনের বাম্পার ফলন হওয়ার পরেও, কৃষকের মাথায় হাত। তালতলীতে নৌকা মার্কার প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন। একটি দৃষ্টি নন্দন সৌন্দর্যময় বিনোদন কেন্দ্র, কল্পনা পিকনিক স্পট। ঝালকাঠি জেলা কৃষকদলের কমিটি গঠন। নেত্রকোণায় সরকারি জীবন বীমা কর্পোরেশনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। কেশবপুরের মঙ্গলকোটে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম-এর ১২৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন। কেশবপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সমাবেশ। জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন ২০২২ উপলক্ষে ঝালকাঠিতে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত। মানবেতর জীবন যাপন করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের একতা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের শিক্ষক কর্মচারীরা। বগুড়ায় র‌্যাবের অভিযানে কাহালুতে নকল স্বর্ণের মূর্তিসহ আটক ২।

কুয়াকাটা অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে দিল প্রশাসন

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১
  • ১০৪ বার পঠিত

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ,কুয়াকাটাপ্রতিনিধি ঃ-
ক্ষমতার প্রভাব দেখিয়ে কলাপাড়া উপজেলায় বারবার ঘটছে সরকারি জমি ও খাল ভরাট করে অবৈধ স্থাপনা, সেই স্থাপনাকে ভেঙে গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন, কুয়াকাটায় খালের উপর গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন প্রশাসন।

সোমবার বিকেলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডল এ উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্ব দেন।
কলাপাড়া উপজেলার কুয়াকাটা পৌরসভার নবীনপুর সরকারি খাল দখল করে নির্মিত মেয়র বাজারের ১৫-২০ টি পাকা ও কাঁচা স্থাপনার বর্ধিত অংশ ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ওই বাজারের পাশে সরকারি খাল দখল করে রাতের আধারে প্রায় ১৫-২০ টি পাকা স্থাপনা নির্মাণ করেছিলো আড়তপট্টির বেশ কয়েকজন আড়ৎদার খালের অর্ধেক দখল করে আরসিসি পিলার দিয়ে পাকা স্থাপনা গড়েছিল। দখল করে নিয়েছিল খালের অর্ধেক জমি খাল ভরাট হওয়ার কারণে কুয়াকাটা পৌরসভার পানি না নামতে পারে ফসলি জমি সহ তলিয়ে থাকে।

নাম না বলা কিছু স্থানীয়রা বলেন, আমাদের গ্রাম মহল্লা বৃষ্টির পানি গুলো আগে এই খালে নাম তো, এবং কুয়াকাটা সকল গ্রাম মহল্লা ছোট ছোট নালা দিয়ে বর্ষার পানি এই খানে চলে আসেতো, কিন্তু অবৈধভাবে খাল দখল করে খালের পরিধি ছোট হওয়ায় এখন সমস্যায় পড়তে হয়েছে আমাদের। এক কৃষক বলেন, এবার বর্ষা আমার ফসলি জমি থেকে খালের দিকে পানি নামানোর চেষ্টা করি, কিন্তু উল্টো খালের পানিতে আমার ফসলি জমি তলিয়ে গেছে, পরে খোঁজ নিয়ে দেখতে পারি খাল দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঘরে তুলছে, তাই পানি না নামতে পেরেক ভাসতে হচ্ছে আমার ফসলি জমি।

এমন সমস্যা খবর পেয়ে সোমবার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মন্ডলের নেতৃত্বে ওই অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

জগৎবন্ধু মন্ডল জানান, উপজেলায় অবৈধ স্থাপনা গুলো পর্যায়ক্রমে উচ্ছেদ করা হচ্ছে, সরকারি খালের স্রোত কোনোভাবেই বাঁধাগ্রস্থ করা যাবে না। এখানে আজকে ১৫-২০ টি স্থাপনা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। আর অবৈধ স্থাপনার উপর আমাদের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এমন আশ্বাস পেয়ে এবং খাল দখলমুক্ত হওয়ায় আনন্দের হাসি দেখা গিছে কৃষকদের মুখে এবং দেখা গিয়েছে খালের পানির স্রোত সমুদ্রের দিকে নামতে শুরু করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা