শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo বরিশাল তরুণ সাংবাদিক ফোরামের সাধারন সভা অনুষ্ঠিত। Logo বাংলাদেশ হস্তশিল্প এসোসিয়েশনের উদ্যোগে নেত্রকোণায় শীতবস্ত্র বিতরণ। Logo কাহালু প্রেসক্লাবে ৫ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন। Logo নতুন অতিথি। Logo বারহাট্টায় বাংলাদেশের বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ। Logo কাহালুতে দৈনিক ভোরের দর্পণ পত্রিকার ২১ তম বর্ষপূতি উপলক্ষে কেক কর্তন ও আলোচনা সভা। Logo ঝালকাঠি শহরে গভীর রাতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদা দাবীর অভিযোগে যুবক আটক। Logo দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকাসহ কিছু অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ। Logo ঝালকাঠির নবগ্রামে বসত বাড়ির চলাচলের পথে পাকা স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগ। Logo ইএসডিও সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রজেক্ট (এসইপি) আবাসিক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত।

কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যানকে বিলীন করছে ভয়ানক সাগর

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৬৬ বার পঠিত
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১, ১০:৩৮ অপরাহ্ণ

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ,কুয়াকাটা,প্রতিনিধি:-
সাগর গর্বে সম্পূর্ণ বিলীনের পথে কুয়াকাটা সৈকতের বিশাল সবুজ বেষ্টনী, হুমকির মধ্যে সমুদ্রতীরের পরিবেশ, বছর বছর ভাঙ্গনে ভাসিয়ে নিয়েছে কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যানের ৮০শতাংশ।চলছে বর্ষা বাকিটুকু বিলীন হতে সংখ্যার মুখে, উদ্যান রক্ষায় বন বিভাগ প্রকল্প হাতে নিলও আশার মুখ দেখছে না।

সাগর পাড়ে সবুজের বাগান প্রকৃতিকে এক সৌন্দর্যের আয়োজন, প্রায় চার হাজার একর জমিতে এই সবুজ বেষ্টনী আগলে রাখে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত কে। ২০১০ সাল থেকে যার অন্য নাম কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যান।
নারিকেল বাগান আর ঝাউবনের হাতছানিতে ছুটে আসতো হাজারো পর্যটক, সেই ঝাউবনের বাতাসের মধুর সুরে শাশা শব্দ উপভোগ করার জন্য চলে আসত সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভ্রমণ পিপাসিত লোকজন।
কিন্তু এখন এর বেশিরভাগ জুড়েই দুধু সাদা বালুরচর।
জাতীয় উদ্যানের বড় ক্ষতি হয় ২০০৭ সালের ঘূর্ণিঝড় সিডরে, প্রতিবছর তো ভাঙ্গন আছেই উদ্যানের বাকিটুকু বিলীন হয়েছে এই ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে, সব মিলিয়ে উদ্যানটির ৮০ শতাংশ বিলীন হয়ে গেছে সমুদ্র গর্বে ।
উদ্যানের পাশে বসবাসকারী আনসার মাঝি বলেন, একসময় কুয়াকাটার একটি বড় দর্শনীয় স্থান ছিল, এখানে অনেক নানা বাহারি গাছ ছিল। যেমন, ঝাউ গাছ, নারিকেল বাগান, আম বাগান, সালতি বাগান সহ অন্যান্য। এই কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যান যেখানে প্রতিনিয়ত মানুষের আনাগোনা থাকতো আজ সাগরের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে সুন্দর এই দর্শনীয় স্থান জাতীয় উদ্যান।

কিন্তু এছাড়াও জানা গেছে প্রতিবছরই বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ সহ প্রায় পাঁচ মাস সাগরের ঢেউ প্রচন্ড বড় হয়,এবং প্রচুর পরিমাণ স্রোতের কারণে ভাঙ্গনের কবলে পড়ে জাতীয় উদ্যান।কুয়াকাটা ঝাউবনে একটি অপরূপ সৌন্দর্যের নারিকেল বাগান ছিল, ২০০৭ সালে সিডরে ও প্রতিবছর ভাঙ্গনে বিনষ্ট হয়ে গেছে সৌন্দর্যের নারিকেলবাগান টি।
স্থানীয়দের সংখ্যা অতি দ্রুত যদি ভাঙন ঠেকানোর জন্য কোন প্রকল্প না নেওয়া হয়, তাহলে দুই,তিন বছরের মধ্যে বিলীন হয়ে যাবে কুয়াকাটা সৌন্দর্যের জাতীয় উদ্যান টি।

এই ভাঙ্গন ঠেকাতে কুয়াকাটার সামাজিক সংগঠনগুলো সহ স্থানীয়দের নিয়ে ভাঙ্গন রোধ কারার আবেদন করলও, এখন পর্যন্ত ভাঙ্গান রোধ করার কোন সাড়া মেলেনি, এরকম অবহেলার কারণে আজ বিলীন হয়ে যাচ্ছে সাগরকন্যা কুয়াকাটা জাতীয় উদ্যান সহ ফসলি জমি।

একদিকে ভেসে যাচ্ছে স্থানীয় মানুষদের বসবাসের স্থান অন্যদিকে ছোট হয়ে আসছে কুয়াকাটার মানচিত্র স্বপ্নের কুয়াকাটাকে ক্রোমায় বিনষ্ট করছেন ভয়ানক সাগর, স্বপ্নের কুয়াকাটাকে টিকিয়ে রাখতে অতি দ্রুত ভাঙ্গন রোধ করার দাবি এলাকাবাসীর।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD