1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সয়াবিনের বাম্পার ফলন হওয়ার পরেও, কৃষকের মাথায় হাত। তালতলীতে নৌকা মার্কার প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন। একটি দৃষ্টি নন্দন সৌন্দর্যময় বিনোদন কেন্দ্র, কল্পনা পিকনিক স্পট। ঝালকাঠি জেলা কৃষকদলের কমিটি গঠন। নেত্রকোণায় সরকারি জীবন বীমা কর্পোরেশনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। কেশবপুরের মঙ্গলকোটে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম-এর ১২৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন। কেশবপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সমাবেশ। জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন ২০২২ উপলক্ষে ঝালকাঠিতে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত। মানবেতর জীবন যাপন করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের একতা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের শিক্ষক কর্মচারীরা। বগুড়ায় র‌্যাবের অভিযানে কাহালুতে নকল স্বর্ণের মূর্তিসহ আটক ২।

জননী পরিবহনের কারণে রামগঞ্জে-চাটখিল- সোনাইমুড়ী মহাসড়ক মৃত্যুপুরী সড়কে পরিণত,দেখার কেউ নেই।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৭ বার পঠিত

মোজাম্মেল হক লিটন,নোয়াখালী প্রতিনিধি।
রামগঞ্জ থেকে মাইজদী রোডে চলাচলকারী জননী পরিবহনের কারণে রামগঞ্জে- চাটখিল- সোনাইমুড়ী মহাসড়ক মৃত্যুপুরী সড়কে পরিণত হয়েছে।বেপোয়ারা চলাচলের কারণে জননী পরিবহন সপ্তাহে অন্তত দুইটি দুর্ঘটনা ঘটাচ্ছে। চাটখিলের দশঘরিয়া বাজার থেকে সোনাইমুড়ী পর্যন্ত মহাসড়কে জননী পরিবহন বেশিরভাগ দুর্ঘটনা ঘটিয়ে চলছে। বছরের পর বছর ধরে চলছে জননী পরিবহন এইসব তাণ্ডব, অথচ দেখার কেউ নেই। আজ পর্যন্ত এ পরিবহনের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে,তার নজির দৃশ্যমান নয়। গত কয়েক বছরে, কত মায়ের বুক খালি করেছে জননী পরিবহন, তার সঠিক হিসাব সংশ্লিষ্ট কোনো সংস্থা দৈনিক নয়া বঙ্গবাজার কে দিতে পারেনি। জননী পরিবহনে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে স্বজন হারানোদের কান্না বাতাস বয়ে বেড়াচ্ছে।আহতদের আত্মচিৎকারে কাঁদছে সয়ং এই মহাসড়ক নিজেই। খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, জননী পরিবহনের অনেক ড্রাইভারের লাইসেন্স নেই। অধিকাংশ পরিবহনের নেই রোড পারমিট। রাস্তায় চলাচলের জন্য এসব পরিবহন আদৌ উপযোগী কিনা তা নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে জননী পরিবহন আরো বেপোয়ারা হয়ে উঠবে। এ অবস্থায় প্রায় প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনা ঘটার সমূহ সম্ভাবনা,বিগত বছরগুলোর মতো বিদ্যমান। এই রোডে চলাচলকারী অন্যান্য পরিবহন, যাত্রী ও পথচারীরা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসীর দাবি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে লক্কর ঝক্কর যেসব জননী পরিবহন রয়েছে সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের। এছাড়া লাইসেন্স বিহীন ডাইভারদের ঈদ মুহূর্তে গাড়ী পরিচালনা থেকে দূরে রাখবে এটাই সকলের দাবি। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে নোয়াখালী জেলা মোটরযান পরিদর্শক সালেহ আহমদ বলেন, আমাদের নিজস্ব কোনো ভ্রাম্যমান আদালত নেই। জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় আমাদেরকে আদালত পরিচালনা করতে হয়। ঈদ উপলক্ষে বিশেষ আদালত পরিচালনা করার উদ্যোগ ইতিমধ্যে আমরা নিয়েছি। তিনি বলেন, জননী পরিবহনের বিরুদ্ধে আমাদের কাছে বহু অভিযোগ রয়েছে। সালেহ আহমেদ বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে সংশ্লিষ্ট পরিবহনের বিরুদ্ধে আমরা সাথে সাথে ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা