1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
নবাগত ওসির সাথে রুহিয়া থানা প্রেসক্লাবের সদস্যদের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় সভা। একজন তরুণ হাফেজের বেঁচে থাকার জন্য আর্থিক সাহায্যের আকুল আবেদন। ঝালকাঠিতে গ্রামীন ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার’র দূর্নীতির মামলায় ১০বছরের কারাদন্ড। তালতলী ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়। কাহালুতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে, বিনামূল্য সার বীজ বিতারন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সাহিত্য সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে লেখক হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট পেল সাংবাদিক বাচ্চু। কেশবপুরের বাঁশবাড়িয়া বাজার পরিচালনা কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন। নেত্রকোনার সুলতানকে দেখতে মানুষের ভিড়। জন্মনিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায়,সুবিদপুর উদ্যোক্তার সাথে স্থানীয় জনতার হাতাহাতি। কাহালুতে প্রাণী সম্পদ অফিসে খামারীদের মধ্যে গরু,ছাগল বিতরণ।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে বৃদ্ধিতে অসহায় হয়ে পড়েছে কুয়াকাটার জেলে পরিবার।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৬ মার্চ, ২০২২
  • ৪৩ বার পঠিত

জাহিদুল ইসলাম,কুয়াকাটা পটুয়াখালী প্রতিনিধি।
কুয়াকাটার জেলে আব্দুর রশিদ মাঝি, গভীর সমুদ্র থেকে মাছ শিকার করে প্রতিনিয়ত বাজারে বিক্রি করে, তার অর্থনৈতিক চাহিদা মিটায়। সেই ধারাবাহিকতায় ৬ তারিখ (রবিবার) তিন কেজি ফাইসা মাছ বিক্রি করে, বাজার থেকে ২০০ টাকার ১কেজি সয়াবিন তেল কিনে এনেছে। হঠাৎ এমনভাবে দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ায় অসহায় হয়ে পড়েছে জেলেপল্লীর পরিবারগুলো। তৈল হাতে মলিন মুখে বাসায় থাকা ছোট্ট ছেলের সামনে খালি হাতে ফিরে এসেছে রশিদ মাঝি। এমন রশিদ মাঝি মত অসহায় হয়ে পড়ছে কুয়াকাটা হাজারো জেলে পরিবার।

গত দুই বছর করোনা মহামারির সঙ্গে লড়াই করে কেটেছে জেলেদের জীবন। সেই ধাক্কা সামাল দিতে গিয়ে জেলে পল্লী মানুষের জীবন এমনিতে চরম সঙ্কটে। চিকিৎসা, বাসস্থান, বস্ত্রের মতো মৌলিক চাহিদাগুলোতে ব্যয় কমিয়ে ফেলেছে তারা এর মধ্যে করোনাভাইরাসের চেয়েও ভয়াবহ হয়ে দাঁড়িয়েছে দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি।স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও টিকা নিয়ে হয়তো করোনাভাইরাস ঠেকানো সম্ভব; কিন্তু নিত্যপণ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে রীতিমতো অসহায় জেলেপল্লীর হাজার জেলে পরিবার।

জেলেদের আয়ের বড় অংশই খরচ করতে হচ্ছে ক্রাশিং তেল ও মাছ ধরার সরঞ্জাম এর পিছনে। আবার অনেকেই সমুদ্রের দূরে গিয়ে যে মাছ ধরত, এখন কিনারায় বসে মাছ শিকার করছে, এর কারণ হচ্ছে বাড়তি ব্যয় মেটাতে। অনেকের জেলে পরিবারের সন্তানের লেখাপড়াতেও ছেদ পড়েছে। জীবনধারণের উপযোগী প্রতিটি জিনিসের অগ্নিমূল্য। চাল, ডাল, মাছ, মাংস, তেল, তরিতরকারি, ফলমূল, চিনি, লবণ, গম, আটা, রুটি, বিস্কুট ইত্যাদি দ্রব্যের মূল্য আগের তুলনায় কয়েক গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে খেটে খাওয়া মেহনতি মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে।

রশিদ মাঝি বলেন, দিন দিন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে, এবং এমন দাম বাড়ায় অসহায় হয়ে পড়ছে তারা। তিনি আরো বলেন আমরা যখন মাছ বিক্রি করি তখন আর কোন কিছু দাম বৃদ্ধি পায় না, কিন্তু কোন কিছু কিনতে গেলে চড়া দামে কিনতে হয়, এখন দেখতেছি করোনার চাইতো ভয়াবহ হয়ে দাঁড়িয়েছে জিনিসপত্রের দাম বাড়ায়।

সামাজিক সংগঠন কুয়াকাটা শুভ সংঘ ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক, মনির মোল্লা বলেন, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় অসহায় হয়ে পড়েছে দিন এনে দিন খাওয়া মানুষগুলো। জেলেদের পল্লীগুলোতে চলছে হাহাকার।

একই সময়ে জেলেপল্লী পরিবারের সাধারণ মানুষগুলো অনুরোধের শব্দ প্রধানমন্ত্রীর কাছে দ্রব্যমূল্যের দাম কমানোর অনুরোধ জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা