1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
নবাগত ওসির সাথে রুহিয়া থানা প্রেসক্লাবের সদস্যদের সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় সভা। একজন তরুণ হাফেজের বেঁচে থাকার জন্য আর্থিক সাহায্যের আকুল আবেদন। ঝালকাঠিতে গ্রামীন ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার’র দূর্নীতির মামলায় ১০বছরের কারাদন্ড। তালতলী ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়। কাহালুতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে, বিনামূল্য সার বীজ বিতারন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সাহিত্য সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে লেখক হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট পেল সাংবাদিক বাচ্চু। কেশবপুরের বাঁশবাড়িয়া বাজার পরিচালনা কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন। নেত্রকোনার সুলতানকে দেখতে মানুষের ভিড়। জন্মনিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায়,সুবিদপুর উদ্যোক্তার সাথে স্থানীয় জনতার হাতাহাতি। কাহালুতে প্রাণী সম্পদ অফিসে খামারীদের মধ্যে গরু,ছাগল বিতরণ।

নেত্রকোনার দুর্গাপুরে ফসলি জমিতে গড়ে উঠেছে অবৈধ ইটভাটা।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৩০ জানুয়ারি, ২০২২
  • ৬১ বার পঠিত

রিপন কান্তি গুণ,নেত্রকোনা,বারহাট্টা প্রতিনিধ।
নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নে রগজোর এলাকায় সড়কের পাশে প্রায় ১২ একর বোরো ফসলি জমিতে গড়ে উঠেছে অবৈধ ইটভাটা। আশপাশের জমি থেকে মাটি কেটে ওই ভাটায় নেওয়া হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র না থাকায় ভাটার মালিককে জরিমানাও করা হয়েছে। তারপরও ভাটায় ইট তৈরির কার্যক্রম চলছে।

“পি.এন. কোং ব্রিকস”- নামের অবৈধ এই ইটভাটাটির অবস্থান নেত্রকোণা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নের রগজোর এলাকায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পৌরশহর থেকে সরিয়ে চলতি বছরে দুর্গাপুর উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নে রগজোর এলাকায় সড়কের পাশে প্রায় ১২ একর ফসলি জমিতে ইটভাটাটি স্থাপন করা হয়। এর মালিক সদর উপজেলার মো: পাপ্পু মিয়া ।

চলতি জানুয়ারি মাসে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ভাটার মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। তারপরও ইট ভাটায় পুরোদমে ইট তৈরি হচ্ছে।

আজ (৩০ জানুয়ারি) সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, ইটভাটার পাশে ফসলি জমি। এসব জমিতে বোরো ধান আবাদে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষকরা। বিভিন্ন ফসলের জমি থেকে খননযন্ত্র দিয়ে
কাটা হচ্ছে মাটি।

ভাটার পাশেই জমি আছে এমন একজন কৃষক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানান, এই ইটভাটার জন্য আমরাই বেশি ক্ষতি অইতেছে। আমরা চাই এটি একেবারে বন্ধ হোক। কিন্তু মালিকের কাছে অসহায়।
ইটভাটার মালিক মোঃ পাপ্পু মিয়া বলেন, ‘কৃষি ও পরিবেশ অধিদপ্তর কাগজ নেই তার কাছে। তিনি বলেন, চলতি মাসে তার ইটভাটা জরিমানা ও মামলা হয়েছে। তিনি মামলার হাজিরা দিতে কোর্টে বান্দিরা ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

পরিবেশ অধিদপ্তর নেত্রকোণার সহকারি পরিচালক সামছুন্নাহার বলেন, ওই ইটভাটার পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন নেই। এটি পরিবেশ বিপর্যয়ের মাধ্যমে কৃষকদের ক্ষতি করছে। উনার নামে পরিবেশ অধিদপ্তরে আওতা মামলা হয়েছে এবং ওয়ারেন্ট আছে। যেকোন মর্হুতে গ্রেফতার হতে পারেন।

দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রাজীবউল হাসান জানান,কৃষি জমি নষ্ট হচ্ছে যদি কেউ লিখিত অভিযোগ দেন তদন্ত করে ওই ইটভাটার মালিকের বিরুদ্ধে শিগগিরই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা