মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন

বাকেরগঞ্জের আলোচিত গরু চোর রানা ও সোহাগের রিমান্ডের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার সহ সুশিল সমাজের লোকজন।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৯২ বার পঠিত
আপডেট সময় : শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১, ৪:৫৮ অপরাহ্ণ

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি।
বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নে বেশ গরু চুরির ঘটনা শোনা যায়,গরু চোর রানা ও সোহাগ কে আদালতে রিমান্ড মঞ্জুর চেয়ে থানা পুলিশের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছে ভুক্তভোগী পরিবার সহ সুশিল সমাজের লোকজন। তারা জানান এই দুই চোরের ছত্র ছায়ায় বাকী অজ্ঞাত চোরেরা বিভিন্ন ইউনিয়নে গরু চুরি করে থাকেন। এদের রিমান্ডে আনলে বাকী ধরাছোঁয়ার বাইরে চোরের শেল্টার দাতাকে পুলিশ সনাক্ত করতে সক্ষম হবেন। এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি সংবাদ কর্মীদের জানান বাকেরগঞ্জ রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে দাওকাঠী গ্রামের অনেকেই গরু ব্যবসা করে তাদের মধ্যে রানা অন্যতম। এই রানা কে পুলিশ জিজ্ঞেস করলে তার সাথে কারা জড়িত তা বেড়িয়ে আসবে। তিনি আরো জানান এই রানা চোরের সাথে তার একই বাড়ির অন্য কেহ জড়িত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে, কেননা জানতে পারছি এই চোরের আত্নীয় সম্পর্কে কিছু লোক রাতের আঁধারে গরু জবাই করে বাকেরগঞ্জ লেবুখালী গরুর মাংস বিক্রি করতো,এই দুই চোর সোহাগ ও রানা কে রিমান্ডের মাধ্যমে জিজ্ঞেস করলে লেবুখালীতে যে গরুর মাংস বিক্রি করা হতো তা চোরা গরুর কিনা সেই রহস্য বেরিয়ে আসতো।

সোহাগ ও রানা কে আসামি করে রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের ইমামকাঠী গ্রামের ৪ টি গরুর চুরির ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেন মামলা সূত্রে জানা যায় সোহাগ ও রানা দুজনেই গরু চুরির সত্যতা স্বীকার করে পরবর্তীতে বিবাদী কে উক্ত গরুর টাকা ফেরত দিবে বলে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে স্বীকারোক্তি হন, স্বীকারোক্তি হওয়ার পরও টাকা ফেরত দিতে কার্পণ্যতা করেন ফলে গরুর মালিক বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন
অন্যদিকে আরেকজন ব্যক্তির সাথে আলাপকালে তিনি বলেন বাকেরগঞ্জ রঙ্গশ্রী ইউনিয়নে দাওকাঠী গ্রামে কিছু গরু ব্যবসায়ী রয়েছে এদের সাথে কিছু সিন্ডিকেট একযোগে বিভিন্ন এলাকা থেকে গরু চুরি করে রাতের আঁধারে জবাই করে বাজারে মাংস হিসেবে বিক্রি করতো, আবার কেহ বিভিন্ন এলকার বাজারে সাধারণ মানুষের মাঝে বিক্রি করে আসতো। বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলাউদ্দিন মিলন স্যার এর কঠোর অভিযানের মাধ্যমে এই চোরদের সনাক্ত করা হয়,এবং চোরের লিডার রানা ও সোহাগ কে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন।

বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রাম থেকে এই চোরেরা গরু চুরি করে রাতের আঁধারে জবাই করে বাজারে মাংস হিসেবে বিক্রি করতো,আবার এক অঞ্চল থেকে অন্য যায়গায় এই গরু চালান করতো। বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলাউদ্দিন মিলন স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সাধারণ মানুষের একটাই দাবি এই গরু চোরদের আদালতে রিমান্ড চেয়ে বাকী ধরাছোঁয়ার বাইরে চোরের শেল্টার দাতা কে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছে এলাকার সুশীল সমাজের লোকজন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD