রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
Logo ৬ নং ভানোর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার কান্ডারী হতে চান রফিকুল ইসলাম। Logo ঝালকাঠিতে ১০ টাকার চাল বিক্রিতে নানা অনিমের অভিযোগ। Logo ঝালকাঠির বার্জ ডিপো জনস্বার্থে স্থানান্তরের দাবী এলাকাবাসীর। Logo রাঙামাটির গুলশাখালী ইউনিয়ন বাসীর সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চায় আব্দুল মালেক। Logo রায়পাশা- কড়াপুর ইউনিয়ন বাসীর সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চায় আহম্মদ শাহরিয়ার বাবু। Logo শারদীয় দূর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা। Logo বাকেরগঞ্জে গরু চোর সিন্ডিকেটের মূল হোতা সোহাগ বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার। Logo বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় ঠাকুরগাঁওয়ের আনোয়ার খসরু Logo কাহালুতে বাজার ফার্নিচার মালিক সমিতির কমিটি গঠন। Logo ক্যাপশন

ভোলায় সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষিত:ফেরি-ট্রলারে যাত্রী পারাপার

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৫৩ বার পঠিত
আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৩ জুলাই, ২০২১, ৯:৪৮ অপরাহ্ণ

ভোলা  প্রতিনিধি :: চলমান এই করোনা মহামারিতে সরকারি বিধিনিষেধ মানছে না খোদ স্থানীয় প্রশাসন। ভোলায় ঈদ পরবর্তী লকডাউনে কোস্টগার্ড ও নৌপুলিশের সামনে তাদের সহযোগিতায় ফেরি ও ট্রলারে যাত্রী পারাপার হচ্ছে।অথচ সরকারঘোষিত ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিন আজ শুক্রবার। তবে সকাল থেকেই ঢাকা ও চট্টগ্রামমুখী ভোলার শত শত মানুষের ঢল নামে ইলিশা ফেরি ঘাটে। এসব মানুষ তাদের কর্মস্থলে ফিরতে মরিয়া। তারা ভোলার ইলিশা থেকে লক্ষ্মীপুর যাওর জন্য ফেরিতে করে পারাপারের জন্য অপেক্ষা করে। একপর্যায় ফেরি কাউন্টারের একজন স্টাফ এসে স্থানীয়ভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত কোস্টগার্ডের সঙ্গে কথা বলার পর ছেড়ে দেওয়া হয় সব যাত্রীকে। ফলে কোস্টগার্ড ও নৌপুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে ফেরিতে যাত্রী বোঝাই করে লক্ষ্মীপুরের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। শুধু তাই নয়, ট্রলার ও স্পিডবোটে করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উত্তাল মেঘনা পাড়ি দিয়ে ভোলা-থেকে লক্ষ্মীপুরে যাচ্ছে যাত্রীরা।
এসব বিষয়ে যাত্রীদের সঙ্গে আলাপকালে তারা বলে- তাদের যেতেই হবে। রাস্তায় মাইক্রোবাস, মাহেন্দ্র, রিকশা ও অ্যাম্বুলেন্সে করে এসেছেন। লক্ষ্মীপুর থেকে একই ভাবে যেতে হবে বলে চরফ্যাশনের যাত্রী মো. কাইয়ুম ও তজুমদ্দিন থেকে আসা চট্টগ্রামমুখী আকরাম এসব কথা বলেন।এদিকে এ বিষয় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) ফেরিঘাট ম্যানেজার মো. পারভেজ খান বলেন- ‘এটা আমাদের দেখার বিষয় নয়। প্রশাসনের দেখার দায়িত্ব। তার পরও আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি।’ কোস্টগার্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোন দিলে তারা কেউ কল রিসিভ করেননি। অপরদিকে, ভোলার জেলা প্রশাসক মো. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন- ‘আমাদের মোবাইল টিম মাঝেমধ্যেই যাচ্ছে ইলিশাতে। তবে এটা বিআইডব্লিউটিএর দেখার বিষয়। আমি তাদের জানাচ্ছি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD