1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:১৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পিআইও বিজন খরাতির বিরুদ্ধে জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ। কেশবপুরে কসাইয়ের ছুরিকাঘাতে পত্রিকা হকার গুরুতর আহত। কাহালুু উপজেলা মুরইল ইউনিয়ন তাঁতীলীগের এি- বাষিক সন্মেলন অনুষ্টিত। যশোরের কেশবপুরে উৎসবমূখর ও শান্তিপূর্ন পরিবেশে রথযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। হিজলায় পিতৃপরিচয়ের ভয়ে গর্ভের সন্তানকে হত্যা। বরগুনা’য় মাদক দিয়ে ধরিয়ে দেয়ার অপরাধে এলাকা বাসী ও ভূক্তভোগী পরিবারের মানববন্ধন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য মুকুল বোসের প্রয়ানে শোক। যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী বিচারপতি কেতানিজ ব্রাউন জ্যাকসন শপথ গ্রহণ। ভারতে ভূমিধসে মৃত্যু বেড়ে ৮১, নিখোঁজ অনেকে জুনে ধর্ষণের শিকার ৭৬

মাদকের ভয়াল ছোবল ছড়িয়ে পড়েছে নেত্রকোনা জেলা সদরসহ গ্রামগঞ্জ পর্যন্ত।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৮৮ বার পঠিত

রিপন কান্তি গুণ, নেত্রকোনা, বারহাট্টা প্রতিনিধি।
সর্বনাশা মাদক এখন নেত্রকোনা জেলা সদরসহ উপজেলা ও গ্রামে-গঞ্জে পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। সর্বগ্রাসী এ মরণ নেশার ছোবল থেকে বারহাট্টা উপজেলাও রেহাই পায়নি, এতে করে হাজার হাজার তরুন ও যুব সমাজ বিপথগামী হয়ে পড়ছে। তবে, এখন শুধু তরুণ ও যুব সমাজেই তা সীমাবদ্ধ নয়, এখন নেশার সাথে কিশোরাও পরিচিত হয়েগেছে। সমাজ-সংসার সব কিছুই শেষ করে দিচ্ছে মাদকদ্রব্য।

বর্তমানে, বারহাট্টা উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামে ছড়িয়ে পড়ছে গাজা, ফেন্সিডিল, ড্যান্ডি, ইয়রবাসহ সকল নেশার উপকরন।

মাদকের বিষাক্ত ছোবলে উৎকন্ঠিত অভিভাবকরা। তাদের চিন্তা কখন যেন, মাদকের নেশার জালে আটকা পড়ে তার প্রিয় সন্তানটি।

বারহাট্টা উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম- (গোপালপুর, গড়মা, গুহিয়ালা, কাশবন. আন্দাদিয়া, বারঘর ইত্যাদি) ঘুরে- নেশা সম্পর্কে এলাকাবাসীর কাছে জানতে চাইলে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক অভিবাক বলেন- বিকেলবেলার পর থেকেই নেশার জন্য ছুটাছুটি শুরু হয়ে যায়, সন্ধ্যার পর বিভিন্ন জায়গায় নেশার আড্ডা জমে উঠে। এতে তরুণ ও যুবকরা যুক্ত থাকায় তাদের কিছু বলার সাহস হয়ে ওঠেনা। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন, মাঝে মাঝে ধর-পাকরাও করলেও আসামী থানা পর্যন্ত যাবার আগেই সব মিটমাট হয়ে যায়। মাঝে মধ্যে পুলিশ মাদকদ্রব্য ব্যবসায়ীদের দুই চারজনকে ধরলেও মূল হোতারা থেকে যায় ধরা ছোয়ার বাইরে।

বারহাট্টায় নেশার পাশাপাশি আবার জুয়ারির সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। জুয়া খেলার মোহে এখন তরুণ, যুবক ও কিশোরও পড়েছে। মোড়ে মোড়ে চায়ের দোকানগুলোতে টিভিতে ক্রিকেট অথবা ফুটবল খেলা যাই হোকনা কেন জুয়ার বাজী ধরাই এখন তাদের নেশা হয়ে পড়েছে। বারহাট্টায় বর্তমানে কয়েকটি জুয়া খেলার বোটও চালু রয়েছে।

সাধারণ জনগণ মাদকের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়েছেন।

মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে আমাদের সচেতন হতে হবে। মাদকবিরোধী অভিযান জোরদারকরণ, নৈতিক শিক্ষা, সামাজিক মূল্যেবোধ জাগ্রত করতে হবে। মাদকের ভয়াল ছোবল থেকে তরুণ ও যুবকদের রক্ষাকল্পে আইনের শাসন ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার কোনো বিকল্প নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা