1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সয়াবিনের বাম্পার ফলন হওয়ার পরেও, কৃষকের মাথায় হাত। তালতলীতে নৌকা মার্কার প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন। একটি দৃষ্টি নন্দন সৌন্দর্যময় বিনোদন কেন্দ্র, কল্পনা পিকনিক স্পট। ঝালকাঠি জেলা কৃষকদলের কমিটি গঠন। নেত্রকোণায় সরকারি জীবন বীমা কর্পোরেশনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। কেশবপুরের মঙ্গলকোটে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম-এর ১২৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন। কেশবপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সমাবেশ। জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন ২০২২ উপলক্ষে ঝালকাঠিতে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত। মানবেতর জীবন যাপন করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের একতা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের শিক্ষক কর্মচারীরা। বগুড়ায় র‌্যাবের অভিযানে কাহালুতে নকল স্বর্ণের মূর্তিসহ আটক ২।

মানবেতর জীবনযাপন অসুস্থ বৃদ্ধ দম্পতির।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ, ২০২২
  • ৪১ বার পঠিত

খান বশির,বিশেষ প্রতিনিধি।
শফিজ উদ্দিন (৬৩) ও রিজিয়া বেগম (৫০) দম্পত্তির পাঁচ মেয়ে। চার মেয়ের বিয়ে হওয়ায় ছোট মেয়ে নিয়ে কোন রকম জীবনযাপন করছেন ।ছোট মেয়ে বরিশাল অপসোনিন ফার্মা লিমিটেডে সপ্তাহে ১৮শত টাকায় চাকরি করেন।ঘরটি জরাজীর্ণ হওয়ায় ঋণ নিয়ে মেরামত করায় সপ্তাহে যা আয় হয় তা ঋণের টাকা শোধ করতে হয়। তাই এ বৃদ্ধ বয়সে প্রায় দিনই চুলা জ্বলে না তাদের। সেখানে আশপাশের লোকজন কিছু খাবার দিয়ে যান, তা খেয়েই জীবন বাঁচাচ্ছেন তারা। এভাবেই মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন তারা। এমন ঘটনা ঘটেছে ঝালকাঠির জেলার নলছিটি পৌরসভার ৮ ওয়ার্ডের ভাংগাদেউলা গ্রামে।

শফিজ উদ্দিন ছিলেন একজন শ্রমিক। একসময় সুখে শান্তিতে কাটছিল তাদের জীবন। পরে তিনি সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে অসুস্থ অবস্থায় দিন পার করছেন তিনি।তার স্ত্রী রিজিয়া বেগম তিনিও বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। হাঠাৎ করে অসহায় হয়ে পড়ে বৃদ্ধ এই দম্পতি। মেয়েদের আর্থিক অবস্থা ভালো না থাকায় বা মাকে সাহায্য করতে পারছেন না। তাই বর্তমানে মানবেতর জীবন কাটছে তাদের।

বৃদ্ধ এই দম্পতি কান্নাজড়িত কণ্ঠে এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘বাবা আমাগো ছেলে সন্তান নাই। চার মেয়েকে বিয়ে দিয়েছে ছোট মেয়ে যা আয় করে তা দিয়ে আমাদের সংসার চলে না। আমরা বৃদ্ধ এই বয়সে কিছু করতে পারছি না। আমরা কেউ কোন ভাতা পাচ্ছি না। একটা টিসিবির কার্ড করে দিয়েছে কিন্তু টাকা না থাকায় মালামাল কিনতে পারিনি। আজকে যে রান্না করবো ঘরে চাউল নাই। আশপাশের কিছু ভালো মানুষ আছে তারা আমাগোরে খাওন দিয়া যায়, আমরা হেইয়া খাইয়া থাহি। আল্লায় যেন এই জীবন থাইকা আমাগোরে মুক্তি দেন। শেষ জীবনে যাতে একটু নামাজ রোজা কইরা মরতে পারি হেইডাই চাই।’

এ বিষয়ে ৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর লাভলু বলেন, এ রকম অসহায় লোক আছে সেটা আমার জানা নাই। তবে যদি টিসিবির কার্ড না পেয়ে থাকে আমার সাথে যোগাযোগ করতে বলবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা