রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo রোহিঙ্গা ও আটকে পড়া পাকিস্তানিরা দেশের বোঝা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। Logo বরিশালে সরকারি ঘর পাইয়ে দেয়ার কথা বলে টাকা নেওয়া, প্রতারক খলিল হাওলাদার’র ১ বছরের কারাদন্ড। Logo কলাপাড়ার মিঠাগঞ্জ ইউপিতে জেলে ও ভিজিডি’র চাল বিতরণ। Logo ঠাকুরগাঁওয়ে প্রথম ফাতেমা জাতের ধান চাষ করে সাফল্য অর্জন রেজাউল করিমের। Logo বাকেরগঞ্জ উপজেলায় লাইসেন্সবিহীন জমজমাট ফার্মেসী ব্যবসা /যেন দেখার কেউ নেই। Logo ৬ নং ভানোর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার কান্ডারী হতে চান রফিকুল ইসলাম। Logo ঝালকাঠিতে ১০ টাকার চাল বিক্রিতে নানা অনিমের অভিযোগ। Logo ঝালকাঠির বার্জ ডিপো জনস্বার্থে স্থানান্তরের দাবী এলাকাবাসীর। Logo রাঙামাটির গুলশাখালী ইউনিয়ন বাসীর সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চায় আব্দুল মালেক। Logo রায়পাশা- কড়াপুর ইউনিয়ন বাসীর সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চায় আহম্মদ শাহরিয়ার বাবু।

মৃত্যু চিরন্তন অবিচল সত্য

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৫১ বার পঠিত
আপডেট সময় : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:৪৭ অপরাহ্ণ

সৌদিআরব প্রতিনিধি,মোঃ ইব্রাহিম সরদার ঃ-
যে জন্মেছে সে মরবেই। যার সূচনা হয়েছে তার সমাপ্তি ঘটবেই। এটা খোদা পাকের শাশ্বত চিরন্তন বিধান। এ অমোঘ বিধানের কোন পরিবর্তন পরিবর্ধন নেই। পৃথিবীর বুকে সবচেয়ে চির ও অনড় সত্য হলো মৃত্যু।
প্রত্যেক প্রাণীকে মরতে হবে। ছারপোঁকা থেকে শুরু করে প্রাণওয়ালা যত সৃষ্টিজীব আছে সবাইকে মৃত্যুর অবশ্যম্ভাবী স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। ইন্তেকালের কবল থেকে জগতের কোন তাবৎ পরাশক্তি কোন প্রযুক্তি কাউকে বাঁচাতে পারবে না। এখানে সবাই অক্ষম। মৃত্যুর নির্ধারিত সময় থেকে এক সেকেন্ড কমবেশি করার ক্ষমতা রাখেনা জগতের কোন দাপটশালী মোড়ল। মৃত্যুর অনীবার্য স্বাদ হর প্রাণীকে পান করতে হবে। আল্লাহ বলেন, “প্রত্যেক প্রাণীকে আস্বাদন করতে হবে মৃত্যু”। সূরা আনয়াম ১৮৫।

এই আয়াতের তাফসীরে ব্যাখ্যাকারগণ বলেন, প্রত্যেক প্রাণওয়ালা প্রাণীই মরণশীল। বেলা শেষে সূর্য যেমন সব পাঠ চকিয়ে বিদায়ী হয়। তাকে বিদায় নিতে হয় । দিবাকরের অস্ত পথ যেমন কেউ রুখতে পারে না। ঠিক তদ্রুপ মানুষের মৃত্যুর সময় যখন আসন্ন হবে, মৃত্যুর ঘণ্টা ধ্বনি যবে বেজে উঠবে তখন কেউ মৃত্যুকে প্রতিহত করতে পারবে না। নির্ধারিত সময় থেকে পূর্বপরে মৃত্যু ঘটাতে সক্ষম হবে না। আল্লাহ বলেন, “যখন তাদের (মৃত্যুর) সময় হয় তখন তারা মুহূর্তকাল অগ্রবর্তী ও পশ্চাতবর্তী হতে পারে না”। সূরা নাহল ৬১।

কখন কোন মানুষের বা প্রাণীর তিরোধান হবে এটা কেউ জানেনা। দুনিয়াতে আগমনের পরিক্রমা সিরিয়াল আছে, প্রথমে দাদা পরে পিতা তারপর নাতি। কিন্তু যাবার কোন সিরিয়াল নেই। যখন যার ডাক আসে তাকে তখনি পরপারে চলে যেতে হবে। সামন্য সময়ের ফুরসৎ দেয়া হবে না। কুরআনে পঠিত হয়েছে, “যখন কারো কর্ম-সময় পূর্ণ হয়ে যাওয়ার মুহূর্ত এসে পড়ে, তখন আল্লাহ তাকে কখনই অধিক অবকাশ দেন না”। সূরা মুনাফিকুন ১১।

মৃত্যু কাউকে জানান দিয়ে আসে না। কোন সময় বা স্থান কাল নির্ধারিত জায়গা ধরে উপস্থিত হয় না। মানুষ জানে না কার মৃত্যু কোথায় কোন জমিনে হবে। আল্লাহ বলেন, “কোন প্রাণীই জানেনা আগামিকাল সে কী উপার্জন করবে। এবং কেউ জানেনা তার মৃত্যু হবে কোন জমিনে”। সূরা লোকমান ৩৪।

দুনিয়ার জগত হলো ক্ষণস্থায়ী। একদিন জগত নির্মূল নাশ হয়ে যাবে। পৃথিবী তার অস্তিত্ব হারাবে। পৃথিবীতে কোন মানুষের চিহ্ন অবশিষ্ট থাকবে না। এই ধ্বংসশীল দুনিয়াতে মানুষও ধ্বংসশীল। আদম জাতিও ক্ষণস্থায়ী। একজন মুসাফির ভবঘুরে যেমন আপন ঠিকানাবিহীন পথ প্রান্তরে ঘুরে বেড়ায়, তার চলতে পথে কোন নির্ধারিত বাসস্থান থাকে না, তেমনি দুনিয়াতে মানবজাতির পরোক্ষ কোন বাসস্থান নেই। যা আছে তা ক্ষণস্থায়ী। দুনিয়ার ময়দানে মানব হল মুসাফির। পৃথিবীর পথে সে হল বাউণ্ডুলে পথিক। তার হায়াতের নির্ধারিত সময়ের ভেতর পূঁজি সংগ্রহ করে পথ চলতে হবে। মুসাফির হয়ে পথের পাথেয় যোগাড় করতে হবে। ইবনে উমর রাঃ থেকে বর্ণিত, ‘“তিনি বলেন রাসুল সাঃ আমার বাহুমূলে ধরলেন। তারপর বললেন, “দুনিয়াতে এভাবে কাটাও যেন তুমি মুসাফির বা পথিক”। হযরত ইবনে উমর বলেন, যখন সন্ধ্যা হয়ে যায় সকাল বেলার অপেক্ষা করো না। আর যখন সকাল হয়ে যায় সন্ধ্যার অপেক্ষা করো না। সুস্বাস্থের দিনগুলোতে রোগব্যাধির প্রস্তুতি নাও। আর জীবদ্ধশায় থাকাকালীন মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা করো”’। বোখারি ৬৪১৬।

এ কথা যখন দিবালোকের ন্যায় সুস্পষ্ট, কোরআন হাদিস তার প্রমাণ বহন করে যে, মৃত্যু অবশ্যম্ভাবী। সবাইকে মৃত্যুর উন্মুক্ত দরজায় প্রবেশ করতে হবে। তা আমাদের মম চিত্তকে পরিশুদ্ধ করা প্রয়োজন। কবরে সুখে থাকার উপকরণ সংগ্রহ করা লাযেম। মৃত্যুকে বেশি বেশি স্মরণ করা দরকার । প্রত্যেকটা কাজের প্রারম্ভে করোটিতে মৃত্যু নামক বাস্তব শব্দের চিত্র আঁকা অতিজরুরি। হাদিসে বিধৃত হয়েছে, আবু হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুল সাঃ বলেছেন- (দুনিয়ার) স্বাদ গন্ধকে বিলুপ্তকারী মৃত্যুকে তোমরা বেশি বেশি স্মরণ করো। তিরমীযি ২৩০৭।
নশ্বর পৃথিবীর শাশ্বত চিরন্তন সত্য হলো মৃত্যু। মৃত্যুর চেয়ে অপরিবর্তনীয় অনড় শব্দ জগতের অভিধানে খুব কম। আখেরে সবাইকে জগত ছেড়ে পরপারে যেতে হবে এটা স্বাভাবিক। সুতরাং ধরার সব পাঠ শেষ করে ইসলামী জীবন ধারণ করে পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে মৃত্যুর প্রহর গুণা বুদ্ধিমানের কাজ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD