1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কেশবপুরের মঙ্গলকোটে রংধনু আর্ট একাডেমির শুভ উদ্বোধন। বাকেরগঞ্জের এসিলেন্ট আবুজর মোঃ ইজাজুল হকের কারিশমায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ। বসতঘর থেকে কলেজ-ছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার। রাজশাহীর মোহনপুরে প্রাইভেটকার ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ। কাহালু’র দূর্গাপুর ইউ পি নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। প্রেমিক’র বিয়ের খবরে প্রেমিকার আত্নহত্যা । কাহালু উপজেলা চেয়ারম্যান সুরুজকে ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময়। হাইওয়ে যেন মরন ফাঁদ সাধারণ মানুষ হচ্ছে দুর্ঘটনার শিকার। নেত্রকোনার মগড়া নদীতে ভেসে আসা মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার। চুকনগর বধ্যভূমি পরিদর্শন করেন ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী বিক্রম দ্রোয়াস্বামী।

যশোরে “এমবিবিএস” ডাক্তার পরিচয়ে চিকিৎসা

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১
  • ১৬৪ বার পঠিত

কে.এম আলী :: যশোর সদর উপজেলায় বসুন্দিয়া – নড়াইল রোড কেফায়েত নগর গ্রামে হাসান আলী, বিল্ডিংয়ের দ্বিতীয় তলায় সাইনবোর্ড বিহীন মাহাবুবুর রহমান, নামে ঢাকা থেকে আগত হঠাৎ এক এমবিবিএস (এমডি) ডাক্তার ও হোমিওপ্যাথিক “বিএইচএমএস” (এমডি), ডাক্তারের আবির্ভাব ঘটেছে।

রোগী দেখার স্থানটিতে কোন প্রকার সাইনবোর্ড না থাকলেও প্রেসক্রিপশন প্যাডে দেশ-বিদেশের উচ্চ ডিগ্রি লিখতে পিছনে পড়েননি তিনি।

বড় বড় ডিগ্রি ব্যবহার করে স্কিন ডিজিজ, সেক্স, (মেডিসিন স্পেশালিস্ট) প্যারালাইসিস, রিউমেটিক, কিডনি স্টোন, ব্রেস্ট টিউমার, রেকটাম ক্যান্সার, পাইলস, ফিটছুলা, পলিপাস, মা ও শিশু চিকিৎসা সহ বিভিন্ন রোগে চিকিৎসা দিচ্ছেন তিনি।

আর তার এই কাজে সহযোগিতা করছেন স্থানীয় একটি দালাল চক্র, তার বিনিময়ে তারা পাচ্ছে ডাক্তারের ফিস বাবদ ৫০০ টাকার থেকে কমিশন।

কয়েক’জন ভুক্তভোগী রোগী জানান ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন
লেখা ঔষধ সারা বাজার খুজেও পায়না তারা। অধিকাংশ ঔষুধ বাজারে নেই বললেই চলে।

এছাড়া ঔষধ যোগাড় করে দেওয়ার কথা বলে রোগীর নিকট থেকে ৩০০০ – ৪০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত, হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে তার বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে চিকিৎসক মাহাবুবুর রহমানের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার “এমবিবিএস” (এমডি) “বিএইচএমএস” (এম ডি) ইন্ডিয়া থেকে ও “ডিএইচ এমএস” এর উপর ঢাকা থেকে কোর্স করা, তার কাছে সনদপত্র
দেখতে চাইলে দেখাতে পারেননি তিনি । তবে ২০১১ সালে ডিপ্লোমা ইন প্যারামেডিক এর একটি সনদপত্র দেখিয়েছেন।

এ বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মোঃ আবু শাহীন বলেন, এমন কোন ডাক্তার আছে কিনা আমার জানা নেই প্রকৃত পক্ষে তিনি ডাক্তার কিনা বিষয়টা খতিয়ে দেখা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা