বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo সৈয়দকাঠীতে বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা রাজ্জাক মাস্টার আনারস প্রতীক পেয়েছেন Logo মনোনয়ন না পেলেই একে অপরকে রাজাকার বানাতে ব্যস্ত ঃ ওবায়দুল কাদের। Logo ঠাকুরগাঁওয়ের সেই তেলের ঘানি টানা দম্পতিকে গরু ও অর্থ উপহার দিলেন- জেলা প্রশাসক Logo বরিশাল লঞ্চঘাটে থ্রি হুইলার থেকে সুমনের চাঁদাবাজি বন্ধের প্রতিবাদে মানববন্ধন Logo শিকলে বাঁধা মৌসুমি এখন স্বাভাবিক জীবনে। Logo আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বাকেরগঞ্জ নিয়ামতি ইউনিয়নে ১ নং ওয়ার্ডে জনমত জরিপে এগিয়ে রয়েছেন বাবুল আকন। Logo ঠাকুরগাঁওয়ে ঐতিহ্যবাহী টাংগন ব্যারেজের গেট উত্তলন। Logo কর্মহীন হয়ে পড়েছেন লেবুখালী ফেরিঘাট কেন্দ্রিক জীবিকা নির্বাহকারী শতাধিক ফেরিওয়ালা ও টং দোকানদার ব্যবসায়ীরা। Logo বরিশাল বানারীপাড়া থানায় পিতা ও পুত্রের বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ। Logo রুহিয়া ইউপি নির্বাচনে আবারও মনিরুল হক বাবুকে নৌকার কান্ডারী দেখতে চায় ইউনিয়নবাসী ।

লকডাউন গরীব করে দিচ্ছে সাধারণ ব্যাবসায়ীদের।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ২৯ বার পঠিত
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৩ আগস্ট, ২০২১, ১০:১২ অপরাহ্ণ

মেহেদী তামিম,বরিশাল প্রতিনিধি ঃ-
দেশে দেড় বছরের একটি অভিশপ্ত শব্দ করোনা।করোনা শব্দটি এতই অভিশপ্ত যে, সচল দেশকে করে দিয়েছে অচল।দিন দিন দখল করে নিচ্ছে তার এগিয়ে যাওয়ার রাজত্ব। চিকিৎসা বিজ্ঞানও যেন আজ হার মানছে অভিশপ্ত করোনার কাছে। মৃত্যুর মিছিল বেড়েই চলেছে দিন দিন। কোন কিছুর কাছেই যেন নত হতে চাচ্ছেনা করোনা।তারপরও বাংলাদেশ সরকার দেশ, ও দেশের জনগনের মঙ্গলের কথা চিন্তা করে করোনার শুরু থেকেই দিচ্ছে ধাপে, ধাপে লকডাউন। এরই ধারাবাহিকতায় বরিশালেও চলছে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন। কিন্তু কঠোর লকডাউন এখন কঠোর করে দিয়েছে সাধারন ব্যাবসায়ীদের বেঁচে থাকার জীবনকে, লকডাউনে দিন দিন গরীব হয়ে যাচ্ছে সাধারণ ব্যাবসায়ীরা।বরিশালের বিভিন্ন সাধারন ব্যাবসায়ীদের কাছ থেকে জানা যায়, তারা এতটাই অসহায় হয়ে পড়েছে যে অনেকেই এখন রাস্তায় বসে পড়ার মত।বরিশাল জর্জ কোর্টের সামনে সাধারন ফল ব্যাবসায়ী মোঃজসিম খান (৪০)বলেন, ভাই আমার বাড়ি বাখেরগন্জ চরামদ্দি, লকডাউনে আমি এতটাই অসহায় হয়ে পড়েছি যে, আমার স্ত্রী সন্তানকে গ্রামের বাড়ি দিয়ে আসছি,করোনার আগে স্ত্রী, সন্তানকে নিয়ে বরিশাল বাসা ভাড়া থাকতাম, আর এখন আমি নিজে ১০০০ টাকা দিয়ে টি,এন,টি মসজিদের ঔখানে বাসা ভাড়া থাকি তাও ভাড়া ঠিকমত দিতে পারিনা। করোনার আগে স্ত্রী সন্তান নিয়ে দিন ভালোই কাটছিলো।ফল বিক্রি করে দৈনিক ৫০০-৬০০ টাকা কামাই করতাম।আর এখন করোনা আসার পরে ধাপে ধাপে লকডাউনে এতটাই গরীব হয়েছি যে,৫০০ টাকায় একটি মোরগ বিক্রি করে সেই টাকা দিয়ে বরিশাল আসছি। এখন চলেন কিভাবে? ভাই ফলের আড়ত দিয়া বাকিতে কিছু ফল আনছি, যদি এই ফল বিক্রি করতে পারি তাহলে আড়তদারকে দেয়ার পর যেটা থাকবে সেটা দিয়ে কষ্ট করে চলতে হবে আরকি।এদিগে আরেক জন ড্রাম ব্যাবসায়ী আজাদ বলেন ভাই করোনার কারনে ধাপে ধাপে লকডাউন দেওয়ায় ব্যাবসা বানিজ্য আজ শেষ হয়ে গেছে। জমানো যে টাকা ছিল তা দোকান ভাড়া দিতে দিতে আর ধাপে, ধাপে লকডাউনের ভিতর সংসার চালাতে সব টাকাতো শেষই,বরংচো এখন একলক্ষ টাকার মত দেনা আছি। কি বলবো ভাই সোজাকথা এখন গরীব হয়ে গেছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD