1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৬:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সয়াবিনের বাম্পার ফলন হওয়ার পরেও, কৃষকের মাথায় হাত। তালতলীতে নৌকা মার্কার প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন। একটি দৃষ্টি নন্দন সৌন্দর্যময় বিনোদন কেন্দ্র, কল্পনা পিকনিক স্পট। ঝালকাঠি জেলা কৃষকদলের কমিটি গঠন। নেত্রকোণায় সরকারি জীবন বীমা কর্পোরেশনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। কেশবপুরের মঙ্গলকোটে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম-এর ১২৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন। কেশবপুরে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সমাবেশ। জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন ২০২২ উপলক্ষে ঝালকাঠিতে সাংবাদিকদের ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত। মানবেতর জীবন যাপন করছেন ঠাকুরগাঁওয়ের একতা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের শিক্ষক কর্মচারীরা। বগুড়ায় র‌্যাবের অভিযানে কাহালুতে নকল স্বর্ণের মূর্তিসহ আটক ২।

শ্রীপুরে টিকা কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
  • ৮৩ বার পঠিত

শ্রীপুর (গাজীপুর )প্রতিনিধি,কনিকা আক্তার।
গাজীপুরের শ্রীপুর সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের টিকাদান কেন্দ্রে দুর্ভোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সকাল থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থী টিকা কেন্দ্রে জড়ো হয়। শিক্ষার্থীদের বসার কোনো ব্যবস্থা না থাকায় প্রখর রোদ উপেক্ষা করে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে আছে শিক্ষার্থীরা। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের অভিযোগ কর্তৃপক্ষ স্কুল মাঠে শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় তীব্র রোদের মধ্যে তাদের দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করতে হচ্ছে।

জানা যায় শনিবার সকাল ৯টা থেকে শ্রীপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যায়ল মাঠে শিক্ষার্থীদের টিকাদানের ২য় ডোজ প্রদান শুরু হয়। বিকাল ৩টা পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৭ হাজার শিক্ষার্থীদের টিকা প্রয়োগ করা হবে। উপজেলার ২৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৮ হাজার শিক্ষার্থী এক সঙ্গে স্কুল মাঠে জড়ো হয়। মাঠে শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো ছায়া, বসা, ও পানির কোনো ব্যবস্থা নেই। এতে শিক্ষার্থীরা চরম দুর্ভোগে পড়ে।

শিক্ষাথীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা সকাল ৯টা থেকে প্রচণ্ড রোদ উপেক্ষা করে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে আছে। বেলা ১ টার দিকে স্কুল মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, হাজার হাজার শিক্ষার্থী দাঁড়িয়ে থেকে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।

এই বিষয়ে শ্রীপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুল হাসান জানান, শিক্ষার্থীরা একসঙ্গে জড়ো হওয়ায় কিছুটা সমস্যা হয়েছে। দ্রুতই তাদেরকে টিকা দেওয়া হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ নুরুল আমিন জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আগেই সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছিল। তারা সময়সূচি না মেনে এক সঙ্গে চলে আসায় সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ প্রণয় ভূষণ দাস জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ পূর্বনির্ধারিত সময়সূচি না মেনে টিকাকেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের নিয়ে চলে আসে। এতে কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। ১৫ জন কর্মী শিক্ষার্থীদের টিকা দিচ্ছে। প্রয়োজনে আরোও টিকাদান কর্মীর সংখ্যা বাড়িয়ে শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য এর আগে গত ৮ জানুয়ারি থেকে শিক্ষার্থীদের ১ম ডোজ টিকাদান শুরু হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা