1. admin@dailyalokitoprovat.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০৯:৪০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঝালকাঠিতে গ্রামীন ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার’র দূর্নীতির মামলায় ১০বছরের কারাদন্ড। তালতলী ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়। কাহালুতে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে, বিনামূল্য সার বীজ বিতারন। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সাহিত্য সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে লেখক হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট পেল সাংবাদিক বাচ্চু। কেশবপুরের বাঁশবাড়িয়া বাজার পরিচালনা কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন। নেত্রকোনার সুলতানকে দেখতে মানুষের ভিড়। জন্মনিবন্ধন সনদে অতিরিক্ত টাকা আদায়,সুবিদপুর উদ্যোক্তার সাথে স্থানীয় জনতার হাতাহাতি। কাহালুতে প্রাণী সম্পদ অফিসে খামারীদের মধ্যে গরু,ছাগল বিতরণ। প্রবাসী বাংলাদেশীদের সাথে নিয়ে ব্রাসিলিয়ায় পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন উদযাপন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল অসহায় শিশু তানিশার দায়িত্ব নিলেন পুলিশ সদস্য জীবন মাহমুদ।

সয়াবিনের বাম্পার ফলন হওয়ার পরেও, কৃষকের মাথায় হাত।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২
  • ২০ বার পঠিত

মোস্তফা কামাল সদ্দাম,হিজলা প্রতিনিধি।
বরিশালের হিজলা উপজেলার হিজলা গৌরববি, মেমানিয়া হরিনাথপুর ও ধুলখোলা ইউনিয়নের কৃষকের প্রধান ফসল সয়াবিন।

প্রতি বছরের ন্যয় এবছর সয়াবিনের বাম্পার ফলন হলেও, মাঠে যখন সয়াবিন পাকা আধাপাকা ঠিক সেই মুহূর্তে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে তলিয়ে গেছে, চোখের দেখা পাকা সয়াবিন ঘরে তুলতে পারছে না অনেকেই।

গরিব কৃষকরা এনজিও সহ নানা সংস্থার থেকে ঋণ নিয়ে জমিতে ফসল ফলায়,সেই ফসল নস্ট হয়ে যাওয়ায় এখন দিশেহারা সয়াবিন চাষিরা কিভাবে পরিশোধ করবে এনজিও সহ বিভিন্ন সংস্থা থেকে উত্তোলনকৃত ঋণের টাকা। সন্তানদের লেখাপড়া সহ সংসার পরিচালনায় দিশেহারা ওই চাষীরা।

হিজলা উপজেলা চরা লের ওইসব এলাকা ঘুরে দেখা যায় অনেক জায়গায় পানি নিষ্কাশনের খালগুলো ভরাট করে মাছের ঘের সহ ঘরবাড়ি নির্মাণ করেছে,দেখার কেউ নেই যে কারণে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার,ক্ষতি হচ্ছে জলাবদ্ধতায় ডুবে যাওয়ার ফসলের।

উপজেলার গৌরবদী ইউনিয়নের বিশর গ্রামের আব্দুল সত্তার সহ একাধিক সয়াবিন চাষিরা জানান তাদের প্রধান ফসল সয়াবিন জলাবদ্ধতার কারণে অধিকাংশ ফসল নস্ট হয়ে গেছে। এখন আমাদের পাশে কোন জনপ্রতিনিধি সহ কোন অফিসাদের পেলাম না। পানি নিষ্কাশনের জন্য সরকার যদি কোন ব্যবস্থা করত তাহলে আমরা একটু বাঁচতে পারতাম।

হিজলা গৌরববি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মিলন বলেন এ বছর অতিমাত্রায় জোয়ারের পানি বৃদ্ধি ও বৃষ্টির পানির কারণে অধিকাংশ সয়াবিন এখন পানির নিচে, অনেক ফসল নস্ট হয়ে গেছে। আমরা অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত চাষীদের পাশে থাকবো।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আহসানুল হাবিব আজাদ আল জনি বলেন এবছর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় সাড়ে ছয় হাজার একর জমিতে সয়াবিন চাষ হয়েছে। সয়াবিনের বাম্পার ফলন দেখে যখন চাষীরা আনন্দে মুখরিত ঠিক সেই মুহুর্তে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে জলাবদ্ধতা সৃস্টি হয়ে অনেক ফসল নস্ট হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা তৈরির জন্য মাঠে তালিকা করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বকুল চন্দ্র কবিরাজ বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করা হবে এবং জলাবদ্ধতার কারন খুজে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা