বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo সৈয়দকাঠীতে বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা রাজ্জাক মাস্টার আনারস প্রতীক পেয়েছেন Logo মনোনয়ন না পেলেই একে অপরকে রাজাকার বানাতে ব্যস্ত ঃ ওবায়দুল কাদের। Logo ঠাকুরগাঁওয়ের সেই তেলের ঘানি টানা দম্পতিকে গরু ও অর্থ উপহার দিলেন- জেলা প্রশাসক Logo বরিশাল লঞ্চঘাটে থ্রি হুইলার থেকে সুমনের চাঁদাবাজি বন্ধের প্রতিবাদে মানববন্ধন Logo শিকলে বাঁধা মৌসুমি এখন স্বাভাবিক জীবনে। Logo আসন্ন ইউপি নির্বাচনে বাকেরগঞ্জ নিয়ামতি ইউনিয়নে ১ নং ওয়ার্ডে জনমত জরিপে এগিয়ে রয়েছেন বাবুল আকন। Logo ঠাকুরগাঁওয়ে ঐতিহ্যবাহী টাংগন ব্যারেজের গেট উত্তলন। Logo কর্মহীন হয়ে পড়েছেন লেবুখালী ফেরিঘাট কেন্দ্রিক জীবিকা নির্বাহকারী শতাধিক ফেরিওয়ালা ও টং দোকানদার ব্যবসায়ীরা। Logo বরিশাল বানারীপাড়া থানায় পিতা ও পুত্রের বিরুদ্ধে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ। Logo রুহিয়া ইউপি নির্বাচনে আবারও মনিরুল হক বাবুকে নৌকার কান্ডারী দেখতে চায় ইউনিয়নবাসী ।

৭ বছর পরে মিলল মুশা পাগলার পরিচয়, নিয়ে গেলেন নিজ পরিবার।

দৈনিক আলোকিত প্রভাত / ৬২ বার পঠিত
আপডেট সময় : রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:০৬ অপরাহ্ণ

কুদরত আলী ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি ঃ-
ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া থানায় দীর্ঘ ৭ বছর অবস্থান করছিল একজন পাগল স্থানীয় লোকজন তাকে মুশা পাগলা হিসেবে ডাকতো। অবশেষে মুসা পাগলার পরিচয় মিলেছে। মুসার ভাল নাম সাজ্জাদ। তার বাবার নাম আমজাদ। মুসার বাড়ী রাজশাহী জেলায়। ছবির খয়েরী শার্ট পড়া ব্যক্তিটি মুসার বড় ভাই। রাজশাহীর একজন ট্রাক চালক রুহিয়ায় মুসাকে দেখে চিনতে পেরে তার পরিবারকে খবর দেয়। মুসার পরিবার দীর্ঘ ১০ বছর যাবৎ মুসাকে বহু খোজাখুজি করেও কোন সন্ধান পায়নি এতদিন। মুসার বাবা মা সন্তান হারানোর শোকে অসুস্থ হয়ে শেষ পর্যন্ত মৃত্যুবরন করেছেন। ১২ সেপ্টেম্বর মুসার পরিবার এসে মুসাকে নিয়ে নিজ বাড়ি চলে যায়। বিদায় বেলা মুসার চোখে মুখে আনন্দের ছাপ ছিল। নিজ আপনজনদের পেয়ে মুসা ফিরে পেল নতুন জীবন।

মুসা পাগল হলেও তার প্রতি রুহিয়ার সকল মানুষের সহানুভূতি ছিল দেখার মত।অনেকে তার খোঁজখবর নিত,খাওয়াতো,চুল কেটে দিত।অনেকে আবার বিরক্তও হতো। মুসা আর কখনো খাওয়ার জন্য কারো দোকানের সামনে দাড়াবে না। সে চলে গেছে নিজ ঠিকানায়,নিজ বাড়ীতে রাজশাহীতে। মুসা ভালো থেকো সবসময়
রুহিয়াকে মনে রেখো। ১ নং রুহিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মনিরুল হক বাবু বলেন, রুহিয়ায় মুশা পাগলা বহু দিন ধরে ছিল আমি দেখছি স্থানীয় লোকজন মুশা পাগলাকে প্রায় খাবার দিত এবং মাথার চুল কাটার ব্যবস্থা সহ কাপড় চোপড় দিত। আজকে তার নিজে পরিবার তাকে বাড়িতে নিয়ে গেল শুনে আমাকেও ভালো লাগলো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

Theme Customized By Theme Park BD